কোরআন শরীফ পুড়িয়ে ইসলাম ধর্ম অবমাননা করার অপরাধে গ্রেফতার ১

কোরআন শরীফ পুড়িয়ে ইসলাম ধর্ম অবমাননা করার অপরাধে গ্রেফতার ১

মো. আব্দুল বারি খান: মুসলিম ধর্মের পবিত্র কোরআন শরীফ পুড়িয়ে ধ্বংস করে ইসলাম ধর্ম অবমাননা করার অপরাধে নওগাঁয় ১জনকে আটক করেছে নওগাঁ সদর মডেল থানা পুলিশ। জেলা শহরের সেন্ট্রাল গার্লস হাই স্কুলের সাবেক প্রধান শিক্ষক মৃত এসএম মোসলেম আলীর পুত্র এসএম আল আমিন মুন (৩০) রহস্যজনকভাবে তার বাবার নিজস্ব বাসার ছাদের উপর পবিত্র কোরআন শরীফে আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেলেছে বলে জানা গেছে।

এসএম আল আমিন মুন নওগাঁর মান্দা উপজেলার জাফরাবাদ এলাকা এবং নওগাঁ বর্তমান নওগাঁ সদর মডেল থানাধীন পৌরসভার খাঁস নওগাঁ ঈদগাহ্ মাঠ (পশ্চিমপাড়া) সাকিনস্থর স্থায়ী বাসিন্দা।

এসএম আল আমিন মুন এর মা নাজমা বেগম নওগাঁর মান্দা উপজেলার সতিহাট সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা এবং আসামীর স্ত্রী শান্তা নওগাঁর মান্দা উপজেলার মৈনম ফকির পাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষিকা বলেও জানা গেছে।

এজাহারের একাংশ থেকে জানা গেছে, পুলিশ মোবাইল ফোনের সংবাদের ভিত্তিতে খাঁস নওগাঁ ঈদগাহ্ মাঠ এলাকার বাসিন্দা মৃত এসএস মোসলেম উদ্দিনের বাসার ছাদের উত্তর পশ্চিম কর্ণারে একটি পুরাতন ডালির উপর থেকে পবিত্র কোরআন শরীফ পোড়ানো অংশ জব্দ করেন। আসামীর মা নাজমা বেগম এবং স্বাক্ষীদের জিজ্ঞাসাবাদের মাধ্যমে বাসার ছাদ থেকে পুলিশ পবিত্র কোরআন শরীফ পোড়ানো অংশ জব্দ করেন।

মুসলিম ধর্মের পবিত্র কোরআন শরীফ পুড়িয়ে ধ্বংস করে ইসলাম ধর্ম অবমাননা করার অপরাধে ২৯৫ ধারায় নওগাঁ সদর মডেল থানায় একটি মামলা হয়েছে। যার নং ০২। তারিখ: ১/১২/২০২০।

পুলিশ আসামি এসএম আল আমিন মুনকে গ্রেফতার করে কোর্টে চালান করলে বিজ্ঞ আদালত আসামি কে জেল হাজতে প্রেরণ করেন।

পুলিশের সঠিক তদন্ত ও অনুসন্ধানে মুসলিম ধর্মের পবিত্র কোরআন শরীফ পুড়িয়ে ফেলার ঘটনায় জড়িত আরো কাহারও নাম বেড়িয়ে আসতে পারে বলেও মনে হচ্ছে। পুলিশের পরবর্তী সঠিক অনুসন্ধান ও  তদন্তেই এর সঠিক কারণ বা মূল রহস্য বেড়িয়ে আসবে বলেও ধারনা করা হচ্ছে।