করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে ডাক্তারের চেম্বার বা হাসপাতালে যা অনুসরণ করা খুবই জরুরী

করোনা ভাইরাস থেকে বাঁচতে ডাক্তারের চেম্বার বা হাসপাতালে যা অনুসরণ করা খুবই জরুরী

বিটিবি নিউজ স্বাস্থ্য কথা: করোনাভাইরাসের কারণে দেশ জুড়ে চলছে অঘোষিত লকডাউন ।  দেশের কোনো কোনো জেলায় চলছে ঘোষিত লকডাউন।  মানুষের স্বাভাবিক জীবন নিয়ে বহু সমস্যা সত্ত্বেও সকলেই একসঙ্গে এই রোগ প্রতিরোধে তা নেনে চলার চেষ্টা করছে।  কিন্তু এমন পরিস্থিতিতে শারীরিক অসুস্থতা হলে অবশ্যই ভাবছেন কী করবেন । কারণ এই মুহূর্তে কোনও হাসপাতাল বা ডাক্তারের চেম্বারে যেতে করোনা রোগির ঝুঁকি বাড়তে পারে । বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কোনও চেম্বার বা হাসপাতালে না এসে অপেক্ষা করাই ভাল । সমস্যা হয় ঘরের শিশু বা বয়স্কদের জন্য । ছোট খাটো অসুস্থতা দেখা দিলে ডাক্তারের সঙ্গে ফোনে কথা বলে কিছু ওষুধ খাওয়া যেতে পারে।  কিন্তু কিছু বাড়াবাড়ি হলে উপায় কী? আপনাকে চেম্বার বা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া ছাড়া আর কোনও পথ খোলা নেই । এমন অবস্থায় থাকতে হলে অবশ্যই নির্দিষ্ট কিছু স্বাস্থ্য নিয়ম মেনে চলতে হবে । সংক্রামিত ব্যক্তি থেকে অন্যের শরীরে কী ভাবে ভাইরাস ছড়ায়, তা আমরা সবাই জানি না । তাই সংক্রমণ এড়াতে আমাদের সতর্ক থাকতে হবে । এক্ষেত্রে এই প্রবন্ধে নির্দিষ্ট কিছু স্বাস্থ্য নিয়ম মেনে চলা উচিত । মানতে পারলে সুস্থ থাকতে পারবেন ।  যদি বড় ধরণের সমস্যা দেখা দেয় সে ক্ষেত্রে ডাক্তারের চেম্বার বা হাসপাতালে যাওয়া ছাড়া আর কোন পথ থাকে না। করোনা ভাইরাসের এই দুর্ভোগের সময় অবশ্যই কিছু স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলা অত্যান্ত জরুরী।

আমরা প্রায় সকলেই জানি করোনা ভাইরাস কীভাবে সংক্রমিত হওয়া ব্যক্তির শরীর থেকে অন্যের শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। তাই সংক্রমণ এড়াতে আমাদের সব সময় সতর্ক থাকতে হবে। সামন্য কিছু স্বাস্থ্যবিধি মেনে চললে আপনিও সুস্থ্য থাকতে পারেন।

১. ডাক্তারের চেম্বারে ঢোকার আগে অবশ্যই সাবান দিয়ে হাত ধোয়া দরকার।

২. হাত ধোয়ার পর টিস্যু পেপার দিয়ে হাত মুছে নিদিষ্ট জায়গায় ফেলুন।

৩. কাপড় বা রুমাল দিয়ে হাত মুছা ঠিক নয়।

৪. হাত ধোয়ার পর হাতে ভাল করে স্যানিটাইজার লাগিয়ে নিতে হবে।

৫. ডাক্তারের চেম্বারে যদি কোন রুগি বা লোক থাকে তাহলে বাহিরে অপেক্ষা করুন।

৬. বসার প্রয়োজন হলে অন্য রোগী থেকে ১মিটার দূরে বসার চেষ্টা করুন।

৭. আপনার মুখে মাস্ক ব্যবহার করবেন।

৮. ডাক্তারের চেম্বারে ঢোকার আগে পুনরায় স্যানিটাইজার হাতে লাগিয়ে নিন।

৯. ডাক্তারের চেম্বারে হাঁচি বা কাশি হলে টিস্যু পেপার ব্যবহার করে নির্ধারিত জায়গায় টিস্যু ফেলুন। হাতে স্যানিটাইজার লাগিয়ে নিন।

১০. শিশুদের ক্ষেত্রে হাত ভাল করে সাবান দিয়ে ধুয়ে টিস্যু পেপার দিয়ে মুছে দিতে হবে।

১১. ডাক্তারের চেম্বারে শিশুকে ছেড়ে দেয়া যাবে না।

১২. নিজের কোলেই বা সাথেই শিশুকে রাখুন।

১৩. ডাক্তার দেখানোর পর আবারও হাত সাবান দিয়ে ধুরে হ্যান্ড স্যানিটাইজার লাগিয়ে নিবেন।

১৪. নিজের কাছে হাত ধোয়া সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, টিস্যু পেপার এবং সাময়িক স্বস্থি পেতে যেসকল ওষুধগুলো ব্যবহার করেছিলেন সেগুলো প্রয়োজনে সাথেই রাখুন।

১৫. আপনার বাড়িতে গিয়ে সরাসরি ওয়াশরুমে গিয়ে ভাল করে সাবান দিয়ে গোসল করুন। সকল জামাকাপড় সাবান দিয়ে কেচে নিন।

করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভারের হাত থেকে রক্ষা পেতে এবং আপনি ও আপনার আপনজনকে নিরাপদ, সু্স্থ্য রাখতে সরকারি নির্দেশনার পাশাপারিশ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন।