হাসপাতালে অক্সিজেন প্লান্ট বসানো হচ্ছে

হাসপাতালে অক্সিজেন প্লান্ট বসানো হচ্ছে

নিউজ ডেস্ক: করোনায় আক্রান্ত জটিল রোগীদের অক্সিজেন লাগে। অনেকে ব্যক্তি উদ্যোগে সিলিন্ডার কিনে ব্যবহার করছেন। শেষ হয়ে গেলে সুযোগ থাকায় রিফিলও করে নিচ্ছেন অনেকে। তেজগাঁও এলাকা থেকে গতকাল তোলা।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী দেশবাসীকে অভয় দিয়ে বলেছেন, ভারত অক্সিজেন সরবরাহ বন্ধ করলেও এ নিয়ে আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই। বাংলাদেশের অক্সিজেন ব্যবস্থাপনা অন্য কোনো দেশের ওপর নির্ভর করে না। এই মুহূর্তে দেশে কোনো অক্সিজেন সংকট নেই।

মন্ত্রী বলেন, ‘লিকুইড অক্সিজেনের তুলনায় গ্যাস অক্সিজেনের উত্পাদনে বাংলাদেশের সক্ষমতা অনেক বেশি। দিনে এখন আড়াই শ টন গ্যাস অক্সিজেন উত্পাদন করা সম্ভব হচ্ছে। আর লিকুইড অক্সিজেন উত্পাদন হয় দেড় থেকে দুই শ টন। দেশের বেসরকারি মেডিক্যাল খাতেও ৪০ থেকে ৫০ টন অক্সিজেন উৎপাদন সক্ষমতা রয়েছে। প্রয়োজনে সেখান থেকেও নেওয়া যাবে। এ ছাড়া আমরা এখন দেশের হাসপাতালগুলোতে স্থাপনের জন্য ছোট ছোট অক্সিজেন প্লান্ট এনে স্থাপনের উদ্যোগ নিয়েছি।’

বিভিন্ন গণমাধ্যমে দেশে অক্সিজেন সংকট নিয়ে সংবাদ প্রকাশের পরিপ্রেক্ষিতে স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রী জাহিদ মালেক গতকাল এক প্রেস ব্রিফিংয়ে এ কথা বলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘সারা বছর ভারত বা অন্য কোনো দেশ থেকে অক্সিজেন আমদানি করার প্রয়োজন পড়েনি। করোনার পিক অবস্থায় ভারত থেকে কিছু অক্সিজেন আমদানি করা হয়েছিল। এখন ভারতের কঠিন সময় যাচ্ছে। তাই হয়তো ভারত অক্সিজেন দেওয়া বন্ধ করেছে।’

মন্ত্রী বলেন, দেশে বর্তমানে দৈনিক চাহিদা এক থেকে দেড় শ টন মাত্র। চাহিদা দ্বিগুণ হলেও অক্সিজেন সংকট এই মুহূর্তে হবে না। অন্যদিকে হাসপাতালে রোগীর চাপও কমেছে। তবে রোগীর সংখ্যা বহুগুণ বৃদ্ধি পেলে তখন ভিন্ন চিত্র দেখা দিতে পারে। এ জন্য রোগী যাতে না বাড়ে সেদিকে সবার মনোযোগী হতে হবে।

টিকা প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ‘ভারত চুক্তি অনুযায়ী টিকা দিতে না পারলে বা বিলম্বে দিলে সে জন্য সরকার বসে থাকছে না, বরং সরকার চীন, রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্রসহ অন্যান্য ভ্যাকসিন উত্পাদনকারী দেশগুলোর সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্ক জোরালোভাবে চালিয়ে যাচ্ছে।

জাহিদ মালেক বলেন, দেশে লকডাউন যেভাবে চলছে তাও কাজে লাগছে, বলা চলে লকডাউন থাকায় সংক্রমণ এখন কমে যাচ্ছে। অন্যদিকে লকডাউনের কারণে ছোট ব্যবসায়ীদের বা যারা কাজ করে চলে তাদের জন্য ক্ষতি হয়ে যাচ্ছে। এ কারণে সরকার স্বাস্থ্যবিধি বজায় রেখে দোকানপাট নির্দিষ্ট সময়ের জন্য খোলা রাখছে।