অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে এগিয়ে বাংলাদেশ

অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে এগিয়ে বাংলাদেশ

করোনাভাইরাস অচলাবস্থায় বিপর্যস্ত বিশ্ব অর্থনীতি ঘুরে দাঁড়ানোর আগেই শুরু হয়েছে কভিড-১৯-এর দ্বিতীয় ঢেউ। ফলে বিশ্ব অর্থনীতির চালক হিসেবে পরিচিত দেশগুলোয় আবারও লকডাউন চলছে। এমনকি দক্ষিণ এশিয়ার বিভিন্ন দেশেও করোনা পরিস্থিতি ফের ভয়াবহ রূপ ধারণ করেছে। তবে বাংলাদেশের করোনা পরিস্থিতি এখনো অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। এখানে সব ধরনের অর্থনৈতিক কর্মকান্ড চালু আছে। সে কারণে এখানকার অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার পরিস্থিতি বিশ্বের অন্য অনেক দেশের তুলনায় ভালো বলে উল্লেখ করেছে বিশ্বব্যাংক, আইএমএফসহ বিভিন্ন আন্তর্জাতিক সংস্থা।

বিশ্বব্যাংক তাদের ‘সাউথ এশিয়া ইকোনমিক ফোকাস’ শীর্ষক প্রতিবেদনে বাংলাদেশের প্রবৃদ্ধি ও অর্থনৈতিক পুনরুদ্ধার বিষয়ে ইতিবাচক পূর্বাভাস দিয়েছে। বিশ্বব্যাংক বলছে, দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে অর্থনীতি পুনরুদ্ধার প্রক্রিয়ায় বাংলাদেশই এগিয়ে। যদিও করোনার কারণে দেশে কর্মসংস্থান, রপ্তানি, প্রবাসী আয়সহ বিভিন্ন খাতে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। তবে ইউরোপ ও আমেরিকার যেসব দেশে বাংলাদেশের তৈরি পোশাক রপ্তানি হয় তাদের অর্থনীতিতে মন্দাভাব রয়েছে। দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে তারা আবারও লকডাউনে যাচ্ছে। ফলে বাংলাদেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের গতিও কিছুটা শ্লথ। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এখানকার অভ্যন্তরীণ চাহিদা ও উৎপাদন অস্বাভাবিক কমেনি, যার ফলে অর্থনৈতিক কর্মকান্ডও থেমে যায়নি। তবে ব্যবসা-বাণিজ্য আর বিনিয়োগের গতি স্বাভাবিক হতে আরও কিছু সময়ের প্রয়োজন।

অবশ্য বিশেষজ্ঞরা বলছেন, দেশে করোনাভাইরাসের প্রথম ধাক্কায় বিপর্যস্ত অর্থনীতি সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে অনেকটা ঘুরে দাঁড়ালেও দ্বিতীয় ধাক্কা লাগতে শুরু করেছে। ফলে একমাত্র রেমিট্যান্স ছাড়া অর্থনীতির প্রধান প্রধান সূচক আবার থমকে দাঁড়িয়েছে। মূল্যস্ফীতির চাপও বাড়তে শুরু করেছে। সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ কমেছে। পড়তির দিকেই রয়েছে দেশীয় বিনিয়োগ। কর্মসংস্থানেও খরা। অর্থ বিভাগের বিভিন্ন পরিসংখ্যান অনুযায়ী চলতি অর্থবছরের প্রথম চার মাসে (জুলাই-অক্টোবর) গত অর্থবছরের একই সময়ের তুলনায় রপ্তানি আয় বেড়েছে মাত্র ১ শতাংশ। এর বিপরীতে আমদানি ব্যয় কমেছে ১১ দশমিক ৪ শতাংশ। অন্যদিকে একই সময়ে রেমিট্যান্স প্রবাহ বেড়েছে ৪৩ দশমিক ২ শতাংশ, সার্বিক রাজস্ব আদায় বেড়েছে মাত্র ৩ দশমিক ৬১ শতাংশ। সরকার ঘোষিত প্রণোদনা প্যাকেজের ৫৫ শতাংশ অর্থ ছাড় করা হয়েছে। অবশিষ্ট ৪৫ শতাংশ এখনো ছাড় হয়নি। ফলে দেশের অর্থনীতি পুনরুদ্ধারের গতি কিছুটা শ্লথ বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা।

 

এদিকে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল (আইএমএফ) ও বিশ্বব্যাংক বলছে, করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের কারণে আবারও বিপর্যস্ত হয়ে পড়তে পারে ইউরোপ-আমেরিকার অর্থনীতি। যার ফলে বিশ্ব অর্থনীতি আবারও থমকে দাঁড়াতে পারে বলে সংস্থা দুটি সতর্কবার্তা দিয়েছে। এ ছাড়া অর্থনীতির জন্য সামনে আরও বড় চ্যালেঞ্জ অপেক্ষা করছে বলে মনে করেন বিশেষজ্ঞরা। করোনার প্রথম ধাক্কার সময় যেসব প্রবাসী দেশে ফিরেছেন তারা এখনো কর্মস্থলে যেতে পারেননি। দেশেও তাদের কর্মসংস্থান হয়নি। তাদের জন্য ব্যাংক ঋণের কথা বলা হলেও প্রয়োজন অনুযায়ী ঋণ পাচ্ছেন না। এ ছাড়া দেশের অভ্যন্তরেও কর্মসংস্থানে ভাটা পড়েছে। নতুন করে চাকরি পাওয়া দূরের কথা চাকরিহারাদের হাহাকারও কাটছে না। ফলে সবচেয়ে নাজুক পরিস্থিতি কর্মসংস্থানের ক্ষেত্রে। একইভাবে উল্টো চিত্র দেখা দিয়েছে দারিদ্র্য বিমোচনের ক্ষেত্রে। দারিদ্র্য কমার জায়গায় আরও বেড়েছে। বেসরকারি গবেষণা সংস্থা ব্র্র্যাক ও পিপিআরসি বলছে, জুলাই শেষে দেশে দরিদ্র মানুষের সংখ্যা ৪০ শতাংশে উন্নীত হয়েছে; যা ২০১৯ সালের ডিসেম্বর শেষে ছিল ২০ শতাংশ। আর ২০১৬ সালে এটা ছিল ২৪ শতাংশ। সেখানে চার বছরে দারিদ্র্য কমেছিল ৪ শতাংশ। আর গত ডিসেম্বর-জুলাই সাত মাসে এ হার দ্বিগুণ হয়েছে। কভিড-১৯ পরিস্থিতি দীর্ঘায়িত হলে দারিদ্র্যের হার আরও বাড়বে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। গত মাসের শেষ সপ্তাহে এ-সংক্রান্ত একটি জরিপ প্রতিবেদন প্রকাশ করে ব্র্যাক ও পিপিআরসি। অন্যদিকে সেন্টার ফর পলিসি ডায়ালগ (সিপিডি)-এর তথ্যমতে দারিদ্র্যের হার এখন ৩৫ শতাংশ; যা ডিসেম্বর, ২০১৯-এ ছিল ২০ শতাংশ। সিপিডির জরিপ বলছে, একইভাবে দেশে আয়বৈষম্য বেড়ে দাঁড়িয়েছে দশমিক ৫২ পয়েন্টে; যা ২০১৬ সালে ছিল দশমিক ৪৮ পয়েন্ট।